ভেজাল প্রতিরোধে জনসচেতনতা জরুরি

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, নকল ও ভেজাল পণ্যের ক্রয় ও বিক্রয় প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধি জরুরি। নকল ও ভেজাল পণ্য সরবরাহ হ্রাস করতে অভিযান ও আইন প্রয়োগের পাশাপাশি তৃণমূল পর্যায়ে জনসচেতনতা বাড়ানোর বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে সংসদ সদস্যদের সম্পৃক্ত করে প্রচারাভিযান চালাতে পারলে নকল প্রতিরোধে ইতিবাচক সাফল্য আসবে। রাজধানীর দৈনিক সমকাল অফিসে গতকাল ‘নকল পণ্য কিনব না, নকল পণ্য বেচবো না’ শীর্ষক প্রচারাভিযানের উদ্বোধন করে তিনি এসব কথা বলেন। দৈনিক সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)-এর সভাপতি গোলাম রহমান, র‌্যাবের মহাপরিচালক ড. বেনজীর আহমেদ। এ সময় স্পিকার একটি সিগনেচার প্লেটে স্বাক্ষর দিয়ে নকল পণ্যের বিরুদ্ধে গণস্বাক্ষরতা অভিযানের সূচনা করেন। ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আরও বলেন, ভেজাল পণ্য কিনে কেউ প্রতারিত হয়ে অভিযোগ দিলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিচ্ছে। পাশাপাশি খাদ্য, প্রসাধনী, ঔষধসহ সব ক্ষেত্রে দেশব্যাপী তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।

এ সময় সবাইকে ভেজাল পণ্য সরবরাহ থেকে বিরত ও ক্রয় থেকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান স্পিকার। এ ধরনের আয়োজন সবাইকে ভেজালমুক্ত পণ্য সরবরাহে অনুপ্রাণিত করবে বলে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান তিনি। অনুষ্ঠানে নকল ও ভেজাল পণ্য প্রতিরোধে আরও ব্যক্ত রাখেন ইউনিলিভার বাংলাদেশের সিইও কেদার লেলে, প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান আহসান খান চৌধুরী, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকোর চেয়ারম্যান গোলাম মঈনুদ্দিন, বাংলাদেশ ঔষধশিল্প সমিতির মহাসচিব এস এম শফিউজ্জামান, স্কয়ার টয়লেট্রিজের হেড অব মার্কেটিং জেসমিন জামান, এসিআই ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ আলমগীর, বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক মো. মেজবাহ উদ্দিন, আমেরিকান চেম্বার্স অব বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মো. শাহাদাত হোসেন, র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরওয়ার আলম, বিএসটিআই পরিচালক সাজ্জাদুল বারি, জেসিআই ঢাকা নর্থের সহসভাপতি নাহিদা আক্তার প্রমুখ।